বরগুনা-২ আসনে বার বার বিজয়ী রিমনকে মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায় উপকূলবাসী

আশেপাশে
0
0

জাতীয় সংসদ নির্বাচন/১৮ বরগুনা-২ আসনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার স্নেহভাজন শওকত হাচানুর রহমান রিমন ৩য় বার  নৌকা মার্কায় বিপুল ভোটে পুনঃ নির্বাচিত হয়ওয়ায় এলাকাবাসী এবারে আওয়ামীলীগের মন্ত্রী হিসেবে দেখতে চায়। গত ৩০ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে রিমনের যোগ্য নের্তৃত্বে দলীয় নেতা-কর্মীদের অক্লান্ত পরিশ্রমে এ আসনে কোন প্রকার প্রাণহানী,সহিংসতাও অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই উৎসব মুখর এবং শান্তিপুর্ণ পরিবেশে অবাধ-সুষ্ঠ নিবাচনের ফলাফলে ১লক্ষ ৯০ হাজার ভোটের ব্যবধানে নৌকার নিরংকুস বিজয় লাভ বরগুনা-২ আসন বাংলাদেশে এক নজির বিহিন বলে রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের অভিমত। বামনা বেতাগী ও পাথরঘাটা এই তিন উপজেলার সমন্বয়ে গঠিত ১১০ বরগুনা-২ আসন। বিএনপি’র শক্তঘাটি হিসাবে পরিচিত এ আসনে সর্বমোট প্রায় ২ লক্ষ ৬৮ হাজার ভোটারের মধ্যে আওয়ামী লীগ প্রার্থী শওকত হাচানুর রহমান রিমন ২ লাখ ৩২৫ ভোট পেয়ে  নির্বাচিত হয়েছেন। তাঁর নিকটতম হেভিওয়েট প্রার্থী বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির ভাইস চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন পেয়েছেন ৯ হাজার ৫১৮ ভোট। ২০০৩ সালেই শুরু হয় তৃণমূল থেকে জনপ্রিয় হওয়ার  শওকত হাচানুর রহমান রিমনের রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের প্রথম ধাপ। পরপর দু’বার নিজ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়ে মেয়াদ শেষ হতে না হতেই উপজেলা চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন। উপজেলা চেয়ারম্যান মেয়াদ শেষ হতে না হতেই গোলাম সবুর টুলু এমপির মৃত্যুতে উপ-নির্বাচনে দলীয় মনোনয়ন পেয়ে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। এরপর দশম সংসদেও বিপুল সংখ্যক ভোটে জয়ী হয়ে জনপ্রিয়তার শীর্ষে চলে এসে একাদশ সংসদ নির্বাচনে ১লাখ ৯০ হাজারের অধিক ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়ে হেটট্টিক করেন শওকত হাচানুর রহমান রিমন। এলাকার সাধারণ মানুষ দাবি করেন ঘুর্ণিঝড়, জলচ্ছাস সিডর আক্রান্ত উপকূলীয় এলাকায় সাংসদ রিমনের মতো একজনকে মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দিলে উপকূলীয় অঞ্চল ডিজিটাল বাংলাদেশের ছোঁয়া পেয়ে আধুনিক শহরে রুপান্তরিত হবে। এ ব্যাপারে পাথরঘাটা পৌর মেয়র আনোয়ার হোসেন আকন  জানান, বঙ্গবন্ধু কন্যা শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে ও ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার লক্ষ্যে জনপ্রিয় ব্যক্তিত্ব শওকত হাচানুর রহমান রিমনকে মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব দিলে উপকূলীয় অঞ্চল দুঃখ দুর্দশা দুরহবে। সাংসদ শওকত হাচানুর রহমান রিমন  বলেন, আমি নির্বাচিত হওয়ার পরে প্রত্যান্ত অঞ্চলে বিদ্যুৎ পৌছে দিয়েছি, যোগাযোগের ব্যবস্থা উন্নয়ন, সমুদ্রে জলদস্যু মুক্ত জেলেরা মাছ শিকার করতে পারে তার কার্যকরি পদক্ষেপ সহ বিভিন্ন উন্নয়ন মূলক কর্মকান্ড করেছি। তিনি আরো বলেন আমি শান্তিপূর্ণ রাজনীতি পছন্দ করি। প্রতিহিংসার রাজনীতি করি না। জনগন আমাকে তৃতীয় বারের মতো সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত করেছেন। সব দিক মিলিয়ে শেখ হাসিনার উন্নয়নের ধারা অব্যাহত রাখতে উপকূলীয় এলাকার মানুষের জন্য কাজ করে যাবো।

 

Please follow and like us:
0
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *