বন্ধুকে মেরে  বস্তায় ভরে মাটিচাপা দিলেন আরেক বন্ধু : রামগঞ্জ

আশেপাশে
0
0

                  বন্ধুকে মেরে  বস্তায় ভরে মাটিচাপা দিলেন আরেক বন্ধু 

                    বন্ধুকে মেরে  বস্তায় ভরে মাটিচাপা দিলেন আরেক বন্ধু 

লক্ষ্মীপুরের রামগঞ্জ উপজেলায় নিখোঁজের ৭দিন পর নির্জন বাগানে মাটিচাপা অবস্থায় মোঃ সুমন নামে ২৬ বছরের এক যুবকের বস্তাবন্দি অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করেছে পুলিশ। রোববার সন্ধ্যায় উপজেলার ভোলাকোট ইউনিয়নের উত্তর নাগমুদ গ্রাম থেকে মরদেহটি উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় নিহতের সহকর্মী মোঃ সোহেলকে আটক করেছে পুলিশ। নিহত সুমন কুমিল্লার মুরাদপুরের সুজানগর গ্রামের মোঃ ইউনুছ আলীর পুত্র। আটক সোহেল রামগঞ্জের নাগমুদ গ্রামের বাবুল মিয়ার পুত্র।তারা দু’জন রামগঞ্জের সোনাপুর বাজারের একটি মুদি দোকানের কর্মচারী। পুলিশ ও স্থানীয়রা জানায়, রামগঞ্জের সোনাপুর বাজারের মোঃ ইউসুফের মুদি দোকানে সুমন ও সোহেল কয়েক বছর ধরে চাকরি করে আসছিল। একপর্যায়ে তাদের মধ্যে বন্ধুত্বের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। সুমনের কাছ থেকে সোহেল টাকা ধার নেয়। তবে কত টাকা ধার নিয়েছে তা নিশ্চিতভাবে জানা যায়নি। পাওনা টাকা নিয়ে তাদের মধ্যে প্রায়ই ঝগড়া ঝাটি হতো। হঠাৎ ২১শে জুলাই রাত থেকে সুমন নিখোঁজ হয়। কোথাও খুঁজে না পেয়ে সুমনের বাবা ইউনুছ আলী রামগঞ্জ থানায় ২৭শে জুলাই একটি লিখিত অভিযোগ দেন। অভিযোগের ভিত্তিতে পুলিশ ঐ দিন বিকেলে সোহেলের বাবা বাবুল মিয়াকে আটক করে। খবর পেয়ে সোহেল থানায় গিয়ে পুলিশের কাছে আত্মসমর্পণ করেন। রোববার তার স্বীকারোক্তি অনুযায়ী নাগমুদ গ্রামের মিঝি বাড়ির নির্জন বাগান থেকে মাটিচাপা অবস্থায় সুমনের বস্তাবন্দি অর্ধগলিত মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। রামগঞ্জ থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) একেএম ফজলুল হক বলেন, আটক সোহেল হত্যাকাণ্ড ঘটনার কথা স্বীকার করে। সোমবার তাকে আদালতে পাঠানো হবে। ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহটি সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। এ ঘটনায় থানায় হত্যা মামলার প্রস্তুতি চলছে।

Please follow and like us:
0
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *