দুবাইয়ে এক নারীকে পতিতাবৃত্তি কাজে বাধ্য করার অপরাধে ৪ বাংলাদেশীর ৭ বছরের জেল

আর্ন্তজাতিক
0
0

দুবাইয়ে এক নারীকে পতিতাবৃত্তি কাজে বাধ্য করার অপরাধে ৪ বাংলাদেশীর ৭ বছরের জেল

ইন্দোনেশিয়ান নারীকে পতিতাবৃত্তি কাজে বাধ্য করার অপরাধে দুবাইতে ৪ বাংলাদেশিকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তাদের বিরুদ্ধে মানবপাচার ও পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অভিযোগে ঐ ৪ জনকে ৭ বছরের কারাদণ্ড দিয়েছে আদালত । এছাড়াও একই অভিযোগে আরও ৩ জনকে দণ্ডাদেশ দেওয়া হয়েছে। আরও বলা হয়েছে, সাজা ভোগ শেষ হলে তাদের নিজ নিজ দেশে পাঠানো হবে।

গালফ নিউজের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ৩৭ বছর বয়সী ইন্দোনেশিয়ান এক গৃহকর্মী সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চাকরির বিজ্ঞাপন দেখে ঐ চক্রের সাথে যোগাযোগ করে। এরপর এক পাকিস্তানী যুবক ও দুই ইন্দোনেশিয়ান নারী তাকে দুবাইতে নিজেদের ফ্লাটে নিয়ে যান।

তবে, তাকে চাকরির পরিবর্তে ৮০ হাজার টাকায় বাংলাদেশিদের কাছে বিক্রি করে দেয় তারা। এরপর তারা ঐ নারীকে এমন একটি বাড়িতে আটকে রাখেন, যে বাড়িটি পতিতালয় হিসেবে গড়ে তোলা হয়েছে । 

আল মুরাক্বাবাত পুলিশ স্টেশনের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, গত বছর ২৫শে অক্টোবর থেকে ১লা নভেম্বর পর্যন্ত এমন ঘটনা ঘটে। গৃহকর্মী নারী ২০১৯ সালের ২লা ফেব্রুয়ারি ইন্দোনেশিয়া থেকে সংযুক্ত আরব আমিরাতে আসেন।

প্রথমে কিছুদিন একটি বাড়িতে কাজ করেন। পরে সেটি ছেড়ে দিয়ে স্বদেশি আরেক নারীর কাছে কাজ চান।

তিনি আদালতকে বলেছেন, ‘শারজাহর এক বাড়িতে কাজ দেয়া হবে বলে আমাকে বিশ্বাস করানো হয়েছিল। পরে বুঝতে পারি আমি বিক্রি হয়েছি। একটি বাড়িতে অন্য নারীদের সঙ্গে আমাকে জোর করে আটকে রাখা হয়, তারা সবাই দেহ ব্যবসায়ী’।

আমি ফিরে আসার জন্য কান্নাকাটি করি। কিন্তু প্রধান আসামি বলে আমাকে নাকি কিনে এনেছে’। একপর্যায়ে ঐ নারী খাওয়া-দাওয়া ছেড়ে দিলে অসুস্থ হয়ে পড়েন। পরে একটি সিমকার্ডহীন মোবাইলে ওয়াইফাই সংযোগ পেলে হোয়াটসঅ্যাপের মাধ্যমে নিজের বোনের সঙ্গে যোগাযোগ করে পুলিশের সাহায্য চান।

পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ‘ভুক্তভোগী নারী আল মুরাক্বাবাতের আল হামরিয়ায় একটি কক্ষে বন্দি ছিলেন। সেখানে জোর করে তাকে দেহ ব্যবসায় নামানো হয়। বাড়িটিতে অভিযান চালিয়ে দু’জনকে গ্রেফতারের পাশাপাশি ঐ নারীকে উদ্ধার করা হয়েছে। 

 

Please follow and like us:
0
0

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *